ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১০ নভেম্বর ২০২২
  1. অপরাধ,দূর্নীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. কৃষি সংবাদ
  4. ক্যাম্পাস
  5. খেলাধুলা
  6. গ্রামবাংলা
  7. জাতীয়
  8. ধর্ম,সাহিত্য
  9. ফিচার
  10. ফেসবুক কর্নার
  11. বিনোদন
  12. মুক্তমত
  13. রকমারি
  14. রাজনীতি
  15. লাইফস্টাইল
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালীগঞ্জের চাপারতল যেন এখন রেস্টুরেন্ট পাড়া 

অনলাইন ডেস্ক
নভেম্বর ১০, ২০২২ ৫:২৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

উত্তরের সীমান্তবর্তী জেলা লালমনিরহাট। এ জেলায় রয়েছে একটি বুড়িমারী নামক স্থল বন্দর। আর এ স্থল বন্দর থাকার সুবাদে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন জেলা শহর হতে অসংখ্য বাস ট্রাক সহ নানা প্রকার যানবাহন চলাচল করে থাকে। আর এ বন্দরে যেতে একমাত্র লালমনিরহাট – বড়িমারী মহাসড়ক। যদিও সড়কটি চারলেন করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে তবে এখনও বাস্তবায়নের কোন উদ্দোগ নেয়া হয়নি।

 আর এ জেলা সদর হতে ২২ কিমি দূরে কালীগঞ্জ উপজেলার একটি এলাকার নাম হচ্ছে চাপারতল। আর এ চাপারতল এলাকায় দিনে দিনে বাড়ছে খাবার রেস্টুরেন্টের সংখ্যা। এ খাবার রেস্টুরেন্ট গুলো প্রতিদিন সকাল হতে রাত ২ টা পর্যন্ত খোলা থাকার কারনে সব সময় মানুষের আনাগোনা পরিলক্ষিত হয়।


চাপারতলের এ রেস্টুরেন্ট গুলোতে বাঙ্গালীর হরেক রকমের মজাদার খাবারের দেখা মেলে।

এ এলাকায় গেলে চোখে পড়ে বিভিন্ন বেশ কয়েকটি রেস্টুরেন্ট। এসব রেস্টুরেন্টে নানা খ্যাদ্যাভাস অনুযায়ী তৈরি হয়ে থাকে হরেকরকমের খাবার। কালীগঞ্জ উপজেলার ভোজন রসিকেরা বিিন্ন এলাকা হতে আসেন এ এলাকার রেস্টুরেন্ট গুলোতে খাবার খেতে। সকাল হতে রেস্টুরেন্ট গুলো খোলা থাকলেও সন্ধ্যার পর এ রেস্টুরেন্টগুলোতে ক্রেতারা বেশি আসেন বলে জানান দোকানিরা। তাই এ এলাকায় চলছে এখন 

রেস্টুরেন্টে ব্যবসার প্রতিযোগিতায় গড়ে উঠছে নতুন নতুন রেস্টুরেন্ট।

এ এলাকায় উচ্চবিত্ত থেকে শুরু করে মধ্যম আয়ের মানুষ গুলো আসেন রেস্টুরেন্টে আসেন খাবার খেতে। 

 রেস্টুরেন্টে গুলোর সম্মুখে রয়েছে গাড়ি পার্কিংয়ের সু- ব্যবস্থা । ভাল ও উন্নত খাবার পরিবেশনের প্রতিযোগিতা এখন রাজধানী রেস্টুরেন্ট, ঢাকা রেস্টুরেন্ট, মুসকান রেস্টুরেন্ট,  রংপুর রেস্টুরেন্ট।

স্থানীয় মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, এ এলাকায় সর্বপ্রথম আকাশ ফিলিং স্টেশনটি চালু হলে উন্নত খাবার পরিবেশনের মধ্যদিয়ে ব্যবসা শুরু করে মুসকান হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট।  আর তখন এ মুসকান হোটেলে বিভিন্ন এলাকার ভোজন রসিকদের আনাগোনা বাড়তে থাকে। এর পরই গড়ে উঠে ঢাকা হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট, ধারাবাহিক রংপুর হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট এবং সর্বশেষে গড়ে উঠেছে রাজধানী হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট।  একটি মফস্বল এলাকায় যেন  হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের চলছে রূতিমত প্রতিযোগিতা। আর এ ভাবেই প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে উপজেলার চাপারতল এলাকা এখন খাবার হোটেলের পাড়ায় পরিনত হচ্ছে।

এখানকার রেস্টুরেন্টগুলোতে কফি পাওয়া যায় ১৮০ টাকা থেকে ৫শ` টাকার মধ্যে। এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের স্মুদি, মিল্ক শেক, ফ্রেপ্পে পাওয়া যায় ১১০ থেকে ৩৫০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের কফি শপ ও পেস্ট্রি শপও রয়েছে।

দৈনিক মুক্তি কথা বলেন রাজধানী হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট এর মালিক বেলাল হোসেন সঙ্গে। এ সময় তিনি  বলেন, তাদের তৈরীকৃত দেশীয় খাবার স্ুস্বাদু ও মজাদার হওয়ার কারনে এখানে খাবার খেতে বিভিন্ন এলাকা হতে মানুষ আসে খেতে। 

এ এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা মো: কহিনুর ইসলাম জানান, দেশের ৬৪ জেলার মানুষ আসে এ রেস্টুরেন্ট গুলোতে খাবার খেতে। খালি কি কালীগঞ্জের মানুষ আইসে বাহে। রংপুর  হাতিবান্ধা হতেও আইতোত মানুষ ভাত খেয়া যায় এ হোটেলগুলোদ। একনা বইসো আইদ হোক দেকেন এলা কি করবার চলে বাহে। 

জানা গেছে এ হোটেল গুলোর খাবারের মান নিঃসন্দেহে ভাল হওয়ার কারনে বিভিন্ন জায়গার লোক আসে খাবার খেতে। এরা অর্ডার নিয়েও খাবার সাপ্লাই করে থাকে। 

ব্যবসসায়িক ভাবে হোটেল গুলোতে প্রচুর ব্যবসা হওয়ার কারনে এ ব্যবসায় চলছে এমন প্রতিযোগিতা বলে জানান অনেকে।

এই সাইটে প্রতিনিধির পাঠানো নিজস্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।