ঢাকাসোমবার , ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
  1. অপরাধ,দূর্নীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ক্যাম্পাস
  4. খেলাধুলা
  5. গ্রামবাংলা
  6. জাতীয়
  7. ফিচার
  8. বিনোদন
  9. মুক্তমত
  10. রকমারি
  11. রাজনীতি
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভুল চিকিৎসার কারণে গর্ভবতী মায়ের মৃত্যু 

অনলাইন ডেস্ক
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২ ১:০০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোঃ নজরুল ইসলাম বিশেষ প্রতিনিধি

যশোররে শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়ায় আখি টাওয়ারের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত আল মদিনা প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নাসরিন খাতুন (২০) নামে এক গৃহবধূর ভুল সিজারের কারণে মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

রোজ সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯ টার সময় সিজারে কন্যা সন্তান হয়। রুগীকে আশংকাজনক অবস্থায় বেলা ১১টার দিকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে এ্যাম্বুলেন্সে মারা যায়। মৃত গৃহবধূ ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের কুমরী গ্রামের রিপনের স্ত্রী।

মৃত নাসরিনের মা জানায়, সকালে মেয়ের সিজার করা হয় আল মদিনা প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে।সিজারের পরে মেয়ের অবস্থা খারাপ হতে থাকে। দ্রুত সাতক্ষীরা নিয়ে যাওয়ার সময় পথিমধ্যে মারা যায়। তারা টাকার লোভে, ভুল চিকিৎসার করণে আমার মেয়ে মারা গেছে।

নিহত গৃহবধুর স্বামী রিপন জানায়, ডাক্তারদের টাকার লোভে তাদের ভুল চিকিৎসার বলি হতে হলো আমার স্ত্রীকে, এ ঘটনার চিকিৎসক ডাঃ আব্দুল মজিদ মোবাইল ফোন রিসিভ করেনি। তিনি আরো বলেন, হাসপাতাল কতৃপক্ষের কাছে জিজ্ঞাসা করলে তারা বলছে হার্ডে সমস্যা ছিল তাই এমন হয়েছে । তিনি আরো বলেন, আগে সমস্যা ছিল না টাকার লোভে সিজার করে এখন মারা গেছে বলে মিথ্যা কথা বলেছে। আমি স্ত্রীর মৃত্যুর সঠিক বিচার চাই।

উলাকোল এবং কুমরী ওয়ার্ডের মেম্বার আব্দুর রশিদ, আসাদুল ইসলাম বলেন, এধরনের অবৈধ হাসপাতাল সরকার রাখার করণে অল্প বয়সে অনেক গর্ভবতী মাকে মৃত্যুর মুখে পড়তে হচ্ছে ।

আল-মদিনা প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ থাকায় ব্যবস্থাপকের ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি।

এঘটনায় শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আবু ইউসুফ জানান, খবর পেয়ে যশোর সহকারী সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে আল-আমিন প্রইভেট হাসপাতালের রুগী মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখে অপারেশন থিয়েটার সিলগালা করা হয়েছে। এধরনের অবৈধ হাসপাতাল বা ক্লিনিক কতৃপক্ষের বিরুদ্ধেও দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

অভিযানে বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ, কাজী শহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটা টিম উপস্থিত ছিলেন

উল্লেখ্য, একাধিকবার এ ক্লিনিক সিলগালা করা হলেও আবার প্রশাসনকে মেনেজ করে ক্লিনিকের কার্যক্রম চালিয়ে যায়। যার ভুক্তভুগি হয় অসাহয় সাধারন রুগিরা।

এই সাইটে প্রতিনিধির পাঠানো নিজস্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।