ঢাকাশুক্রবার , ৪ নভেম্বর ২০২২
  1. অপরাধ,দূর্নীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. কৃষি সংবাদ
  4. ক্যাম্পাস
  5. খেলাধুলা
  6. গ্রামবাংলা
  7. জাতীয়
  8. ধর্ম,সাহিত্য
  9. ফিচার
  10. ফেসবুক কর্নার
  11. বিনোদন
  12. মুক্তমত
  13. রকমারি
  14. রাজনীতি
  15. লাইফস্টাইল
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হারাতে বসেছে বাঙালির মুখরোচক খাবার

অনলাইন ডেস্ক
নভেম্বর ৪, ২০২২ ১:৫৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোসফিকা আক্তার, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ নওগাঁ  বিভিন্ন গ্রামে হাট-  বাজারে  ভোজনরসিক হিসেবে বিশ্বজুড়ে সুনাম রয়েছে বাঙালির। সুস্বাদু ও মুখরোচক হওয়ায় বিশ্বব্যাপী সমাদৃত গ্রাম-বাংলার খাবার। তেমনই কিছু মুখরোচক খাবার কটকটি, বাতাসা, তিলের খাজা, চানাচুর, জিলাপি, বালুসা, খুরমা ও খাস্তা।
কয়েক দশক আগেওগ্রামের হাট-বাজারে এসব খাবারের পসরা সাজিয়ে বসতেন ব্যবসায়ীরা। শিশু থেকে বৃদ্ধ সবার কাছেই প্রিয় এসব মুখরোচক খাবার। তবে কালের বিবর্তনে পাল্টে গেছে গ্রাম-বাংলার চিরায়ত সৌন্দর্য। আধুনিকতার ছোঁয়ায় শৈশবের স্মৃতি থেকে মুছে যেতে বসেছে গ্রামের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সঙ্গে মিশে থাকা হাট-বাজার।
সরেজমিনে নওগাঁ জেলার ধামইরহাটের হাটে গিয়ে দেখা গেছে, এখনো হারিয়ে এসব খাবারের চল অল্পমাত্রায় হলেও টিকে আছে। দূর-দূরান্ত থেকে মাছ, মাংস ও সবজি ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি টিনের ছাউনি দিয়ে তৈরি হয়েছে এসব মুখরোচক খাবারের দোকান। দুপুরের পর থেকে বাবা-দাদাদের হাত ধরে শিশুরাও হাটে আসছে। শিশুদের উপচে পড়া ভিড়ে বিক্রি বেড়েছে ক্রেতাদের।
 বাজার ঘুরে জানা গেল, বিভিন্ন দামে বিক্রি হচ্ছে এসব মজাদার খাবার। ছোট-বড় নিমকি ১৪০ টাকা কেজি, ভাজা মটর কালাই ২০০ টাকা কেজি, কটকটি ২০০ টাকা কেজি, গুড় ও চিনি দিয়ে তৈরি খুরমা ২০০ টাকা কেজি, বাদাম ২০০ টাকা, চানাচুর ২০০ টাকা, পিয়াজু ২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন তারা।
ব্যবসায়ীরা জানান, হাটে দুপুরের পর থেকে ক্রেতাদের ভিড় বেড়ে যায়। ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী নিমকি, পুরি, পিয়াজু, বাতাসা, বালুসা, জাম, চানাচুর, খুরমা, খাস্তা, কটকটি ও জিলাপিসহ বিভিন্ন মুখরোচক খাবার নিজ হাতে তৈরি করেন তারা। তারপর সেগুলো গ্রামের বিভিন্ন হাটে বিক্রি করেন।
উপজেলার রামরামপুর এলাকা থেকে আসা বৃদ্ধ তসলিম উদ্দিন বলেন, ‘নাতি হাটে আসার জন্য বায়না করেছিল । তাই সাইকেলের ক্যারিয়ারে বসিয়ে তাকে হাটে নিয়ে এসেছি। কটকটি, গুড় ও চিনি খুরমা, বালুসা, চানাচুর ও জিলাপি শহরে পাওয়া যায় না, তাই ওকে এখানে নিয়ে এসেছি।’
উপজেলার হরিতকী ডাঙ্গা এলাকার কটকটি ও চানাচুর ব্যবসায়ী মো. আতোয়ার হোসেন সময়ের আলোকে জানান,  প্রায় ৪৫ বছর ধরে বাবার সঙ্গে থেকে তিনি এই ব্যবসাকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। এতদিন এসব খাবার বিক্রি করে তার সংসার দিব্যি চলত। এখন দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে খরচ বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি লাভও কমে গেছে। তবুও দাদার ঐতিহ্যকে টিকেয়ে রেখেছেন তিনি।

এই সাইটে প্রতিনিধির পাঠানো নিজস্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।